প্রথম পাতা » Featured » প্রথম দিনেই মেয়র টুটুল জানালেন, অবৈধ অর্থ উপার্জনের পথ বন্ধ

প্রথম দিনেই মেয়র টুটুল জানালেন, অবৈধ অর্থ উপার্জনের পথ বন্ধ

প্রথম দিনেই মেয়র টুটুল জানালেন, অবৈধ অর্থ উপার্জনের পথ বন্ধ

প্রতিদিন ডেস্ক : অবৈধ অর্থ আয়ের খাত বন্ধের নির্দেশ দিয়েই প্রথম কর্ম দিবস শুরু করলেন মাগুরা পৌর সভার নব নির্বাচিত মেয়র খুরশিদ হায়দার টুটুল। সোমবার আনুষ্ঠানিক ভাবে দায়িত্বভার গ্রহণের পর মঙ্গলবার তিনি তার প্রথম কর্ম দিবস শুরু করেন।

স্থানীয় সরকার বিভাগের বিধান মতে, শিশুর জন্ম বা কোন ব্যক্তির মৃত্যুর তারিখ হইতে দুই বছরের মধ্যে নিবন্ধনের জন্য কোন প্রকার ফিস ছাড়াই এবং পরবর্তিতে বাৎসরিক ৫ টাকা হারে ফিস আদায় করে সনদ পত্র প্রদান করার কথা। কিন্তু গত বছরের ১২ ফেব্রুয়ারি তারিখ থেকে পূর্ববর্তি মেয়র ইকবাল আকতার খান কাফুর অবৈধভাবে এইখাত থেকে ১ হাজার ৫০ টাকা হারে অর্থ আদায় শুরু করেন। এটি স্থানীয় সরকার বিভাগের আইনের পরিপন্থী হলেও গত এক বছর যাবত অবৈধভাবে প্রায় দেড় হাজার ব্যক্তির জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধন বাবদ প্রায় ১৬ লক্ষ টাকা আদায় করা হয়েছে। যার ভোগান্তির শিকার হয়েছে স্থানীয় হাজার হাজার মানুষ।

এ বিষয়ে জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধন শাখার দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা অমিতাভ দেবনাথ জানান, শিশুর জন্ম এবং কোন ব্যক্তির মৃত্যুর দুই বছরের মধ্যে নিবন্ধনের ক্ষেত্রে কোন ফিস আদায়ের নিয়ম না থাকলেও এটি এতদিন হয়ে এসেছে। কিন্তু নতুন মেয়র দায়িত্ব নেবার পর বিষয়টি জানতে পেরে প্রথম দিনেই এইখাত থেকে অর্থ আদায় বন্ধ করার নির্দেশ দিয়েছেন।

এদিকে পৌরসভার হিসাব শাখার দেয়া তথ্য মতে, এ পৌরসভায় স্থায়ী ১২৮ জন সহ মোট কর্মচারীর সংখ্যা ৩৯৮ জন। গত ৫ মাস যাদের বেতন দেয়া হয়নি। যার পরিমাণ প্রায় ৩ কোটি টাকার উপরে। এ ছাড়া বিদ্যুত বিল, টেলিফোন বিল এবং বিগত অর্থ বছরের উন্নয়ন কাজের বকেয়া বিলের পরিমাণ আরো ৯ কোটি টাকা। সর্বসাকুল্যে প্রায় ১২ কোটি টাকার মতো দেনা রয়েছে। যার দায় কাধে নিয়েই নতুন মেয়রকে নাগরিক সেবা নিশ্চিত করার দায়িত্ব নিতে হচ্ছে।

পৌরসভার হিসাব শাখার প্রধান আবদুর রাজ্জাক জানান, পৌর নাগরিকদের কাছ থেকে বিভিন্ন খাতের কর বাবদ আদায়কৃত অর্থ দিয়েই পৌরসভাকে চলতে হয়। কিন্তু কার্যকর পদক্ষেপের অভাবে কর আদায়ের পরিমাণ সন্তোষজনক নয়। যে কারণে পৌরসভাকে অনেকদিন বকেয়া দেনা বয়ে বেড়াতে হচ্ছে। যার নেতিবাচক প্রভাব পৌর কর্মকর্তা কর্মচারি থেকে শুরু করে নাগকিরদের উপর পড়ছে।

এ বিষয়ে মাগুরা পৌরসভার নতুন মেয়র খুরশিদ হায়দার টুটুল বলেন, এটা খুবই দুঃখজনক যে নাগরিক সুবিধা নিশ্চিত করার পরিবর্তে অতিতে নাগরিকদের ঘাড়েই অতিরিক্ত অর্থ চাপিয়ে দেয়া হয়েছে। আমি বিশ্বাস করি নাগরিক সুবিধা নিশ্চিত করা গেলে নাগরিকরাও কর পরিশোধে উত্সাহি হবে। সেই লক্ষ্য বাস্তবায়নে ইতোমধ্যেই একটি কার্যকর নাগরিক কমিটি গঠনের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। আশা করছি তাদের সহায়তায় অবশ্যই নাগরিক সেবা নিশ্চিত করতে সক্ষম হবো।

মাগুরা পৌরসভার নব নির্বাচিত মেয়র খুরশিদ হায়দার টুটুল প্রয়াত মেয়র মাগুরা জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আলতাফ হোসেনের পুত্র। গত ৩১ ডিসেম্বরের নির্বাচনে তিনি নৌকা মার্কা প্রতিক নিয়ে আওয়ামীলীগ প্রার্থী হিসেবে নির্বাচিত হন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Logo_image
সম্পাদক: জাহিদ রহমান
নির্বাহী সম্পাদক: আবু বাসার আখন্দ
প্রকাশক:: জাহিদুল আলম
যোগাযোগ:
পৌর সুপার মার্কেট ( দ্বিতীয় তলা), এমআর রোড, মাগুরা।
ফোন: ০১৯২১১৬১৬৮৭, ০১৭১৬২৩২৯৬২
ইমেইল: maguraprotidin@gmail.com