প্রথম পাতা » Featured » বৃষ্টি কাঁদায় ভরপুর বাসস্টান্ড মহম্মদপুর

বৃষ্টি কাঁদায় ভরপুর বাসস্টান্ড মহম্মদপুর

বৃষ্টি কাঁদায় ভরপুর বাসস্টান্ড মহম্মদপুর

মহম্মদপুর সংবাদদাতা : ভোগান্তির আরেক নাম মহম্মদপুর বাসস্টান্ড। উপজেলা সদরের প্রবেশদ্বারের জনগুরুত্বপূর্ণ ওই বাসস্টান্ডের বেহালদশায় জনভোগান্তি বাড়ছে। দীর্ঘ এক যুগেও গুরুত্বপূর্ণ স্থানটি সংস্কারে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কার্যকরি কোনো উদ্যোগ না থাকায় জনমনে ক্ষোভ বাড়ছে।

বর্ষা মৌসুমে সামান্য বৃষ্টি হলেই হাটু সমান পানি আর কাঁদা জমে এক ভয়াবহ অবস্থার সৃষ্টি হয়। ফলে স্কুল-কলেজগামী শিক্ষার্থী ও পথচারিদের চলাচলেও অশেষ দুর্ভোগ পোহাতে হয়। যানবাহন চলাচলেও ভোগান্তি বেড়ে যায় বহুগুণ। অথচ এই মহাদুর্ভোগ লাঘবে নেই কারো মাথা। স্কুল-কলেজগামী শিক্ষার্থীসহ সাধারণ মানুষদেরকে বাসস্টান্ডের ওই শোচনীয় জায়গাটুকুর কাঁদাপানি পার হতে হয় লাফিয়ে লাফিয়ে।

এটি অস্থায়ী বাসস্টান্ড এবং উপজেলা সদরের প্রবেশদ্বার। এখান থেকেই মাগুরা ও ঢাকাগামী বাসসহ বিভিন্ন সড়কের ইজিবাইক ছেড়ে যায়। চলাচল করে পণ্যবাহী ট্রাক, পিকআপ ও কাভার্ড ভ্যানও। ঢাকা ও মাগুরা থেকে ছেড়ে আসা বাসও এখানে এসে থামে। যাত্রীদেরকে কাঁদা-পানি ডিঙিয়ে এখান থেকেই বাসে উঠতে হয়। একইভাবে বাস থেকে নেমে কাঁদা-পানি ডিঙিয়ে কাক্সিখত গন্তব্যের দিকে যেতে হয়।

খোঁজখবর নিয়ে জানাযায়, মহম্মদপুরে কর্মরত বেশকিছু চাকরিজীবী মাগুরা শহরসহ বিভিন্ন এলাকা থেকে প্রতিদিন বাসযোগে আসেন। আবার মাগুরায় কর্মরত মহম্মদপুরের বেশকিছু চাকরিজীবীকে প্রতিদিন বাসযোগে যেতে হয়। প্রতিদিনই তাদেরকে এক দু:সহ দুর্ভোগ মোকাবেলা করতে হয়।

উপজেলা সদর বাজারে পানি নিস্কাশনের জন্য ড্রেনেজ ব্যবস্থা না থাকায় সামান্য বৃষ্টিতেই জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়। বিশেষ করে জনগুরুত্বপূর্ণ বাসস্টান্ড এলাকায় ময়লা-আবর্জনা ও কাঁদা-পানিতে সয়লাব হয়ে যায়। লাফিয়ে লাফিয়ে পার হতে হয় স্কুল-কলেজগামী শিক্ষার্থীসহ সব শ্রেণিপেশার মানুষকে। অনেকেই কাপড় বাচাতে গিয়ে লজ্জায় পড়েন।

দীর্ঘ একযুগ ধরে এ শোচনীয় অবস্থা বিরাজ করলেও দুর্ভোগ লাঘবে সংশ্লিষ্টদের কারো মাথা ব্যথা নেই। ফলে বাধ্য হয়েই প্রতিনিয়ত দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে হাজার হাজার মানুষকে।

অফিস দিবসে মাগুরা থেকে বাসযোগে মহম্মদপুরে আসা উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কার্যালয়ে কর্মরত অফিস সুপার মো: ফসিয়ার রহমার ক্ষোভের সাথে বলেন, বাসস্টান্ডের এ দুর্দশায় তাকেও রোজ দুর্ভোগ পোহাতে হয়।

শুধু ফসিয়ার নন, বিভিন্ন যানবাহনের চালক-শ্রমিক, স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থী, পথচারিসহ বাস্টান্ডের বেহালদশায় দুর্ভোগের শিকার হওয়া সকল মানুষেরই ক্ষোভ অভীন্ন।

মহম্মদপুর উপজেলা প্রকৌশলী মোহা: রবিউল ইসলাম বলেন, মহম্মদপুর-মাগুরা সড়কটি সড়ক ও জনপদ (সওজ) বিভাগের। বাসস্টান্ড হিসেবে ব্যবহৃত জায়গার আংশিক সওজ বিভাগের এবং আংশিক জেলা পরিষদের। ড্রেনেজ ব্যবস্থার মাধ্যমে পানি নিস্কাশনের জন্য সংশ্লিষ্ট ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে প্রস্তাবনা পাঠানো হয়েছে বলেও জানিয়েছেন এই প্রকৌশলী।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Logo_image
সম্পাদক: জাহিদ রহমান
নির্বাহী সম্পাদক: আবু বাসার আখন্দ
প্রকাশক:: জাহিদুল আলম
যোগাযোগ:
পৌর সুপার মার্কেট ( দ্বিতীয় তলা), এমআর রোড, মাগুরা।
ফোন: ০১৯২১১৬১৬৮৭, ০১৭১৬২৩২৯৬২
ইমেইল: maguraprotidin@gmail.com