প্রথম পাতা » Featured » অশান্ত জনপদের পরিচিতি পাচ্ছে মাগুরার শ্রীকোল

অশান্ত জনপদের পরিচিতি পাচ্ছে মাগুরার শ্রীকোল

অশান্ত জনপদের পরিচিতি পাচ্ছে মাগুরার শ্রীকোল

বিশেষ প্রতিবেদক : প্রতিপক্ষের উপর হামলা, বাড়িঘর ভাংচুর, পুলিশি ধরপাকড়, হয়রানি সহ চলমান পরিস্থিতিতে মাগুরার শ্রীপুর উপজেলার শ্রীকোল ইউনিয়ন একটি অশান্ত্ব জনপদে চিহ্নিত হয়ে উঠেছে। প্রায় প্রতিদিনই ঘটে চলা নানা সন্ত্রাসি ঘটনা ও অপরাজনীতির কালো থাবা থেকে স্থানীয় সাধারণ মানুষ, বয়স্ক মুক্তিযোদ্ধা, চলাচলে অক্ষম শারীরিক প্রতিদ্বন্দ্বি ব্যক্তি কেউই বাদ পড়ছে না।

শ্রীকোল ইউনিয়নের বারইপাড়া, শ্রীকোল, হরিণদি সহ বিভিন্ন এলাকার সাধারণ মানুষ এবং দলীয় নেতা-কর্মীদের সাথে আলাপ করে জানা যায়, বিগত ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে সাবেক চেয়ারম্যান যুবলীগ নেতা কুতুবুল্লাহ হোসেন কুটি স্বতন্ত্র প্রার্থি হিসেবে অংশ নেয়ায় বিপাকে পড়ে যায় আওয়ামীলীগের দলীয় প্রার্থি। যার জের হিসেবে নির্বাচনের পর প্রায় প্রতিদিনই স্বতন্ত্র প্রার্থির কর্মী সমর্থকেরা নানাভাবে সন্ত্রাসি হামলা, বাড়িঘর ভাংচুর এবং মামলা ও পুলিশী হয়রানির শিকার হচ্ছে। যার সর্বশেষ ঘটনাটি ঘটেছে সোমবার সকালে।

এই ইউনিয়নের শ্রীকোল গ্রামের বাসিন্দা হিটলার হোসেন জানান, ভোরবেলা। তখনও ঘুম থেকে ওঠেনি অনেকেই। এমন সময় বিগত নির্বাচনের নৌকা মার্কা প্রার্থি মুতাসিম বিল্লাহ সংগ্রামের কর্মী সমর্থকেরা তাদের বাড়িঘরে হামলা চালিয়ে ব্যাপক ভাংচুর করেছে। যে হামলায় আওয়ামীলীগের তথাকথিত কর্মীদের সঙ্গে অংশ নেয় উপজেলা বিএনপির সভাপতি আশরাফ হোসেন জোয়ারদারের সমর্থকেরাও।

প্রতিপক্ষের হামলার শিকার জাকির হোসেন জানান, সর্বশেষ দলীয় মার্কা বিহিন নির্বাচনে যুবলীগ নেতা কুতুবুল্লাহ হোসেন কুটির কাছে পরাজিত হন বিএনপি নেতা আশরাফ জোয়ারদার। কিন্তু সে নির্বাচনে তিনি পরাজিত হওয়ায় উভয় পক্ষের মধ্যেই আধিপত্য নিয়ে বিরোধ ছিল। যে কারণে এবার নির্বাচনের পর থেকে আওয়ামীলীগ ও বিএনপি জোটবদ্ধ হয়ে কুটির কর্মী সমর্থকদের উপর নানাভাবে অত্যাচার নির্যাতন চালিয়ে আসছে।

নিয়াজ্জেল শেখ অভিযোগ করেন, শ্রীকোল ইউনিয়নে একাত্তরের শ্রীপুর বাহিনী প্রধান মুক্তিযোদ্ধা আকবর হোসেন দীর্ঘদিন ধরে চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্বপালন করে এসেছেন। সর্বশেষ নির্দলীয় নির্বাচনে তার ছেলে যুবলীগ নেতা কুতুবুল্লাহ কুটি ব্যাপক ভোটের ব্যাবধানে নির্বাচিত হন। এই পরিবারটির সঙ্গে স্থানীয় মুুক্তিযোদ্ধাদের সুসম্পর্ক রয়েছে। অথচ আজ যারা সুবিধাবাদি ও নব্য আওয়ামীলীগ হিসেবে পরিচিত তাদের হাতে বয়স্ক মুক্তিযোদ্ধারা পর্যন্ত নানাভাবে নির্যাতিত হচ্ছে।

Magura-Sreepur-Pic-02হরিনদি গ্রামের শারীরিক প্রতিবন্ধী পান্নু মোল্যা বলেন, আমার বাবা একজন মুক্তিযোদ্ধা। আমরাও আওয়ামীলীগ করি। কিন্তু নব্য আওয়ামীলীগারদের হাতে আজকে আমরা নির্যাতিত হচ্ছি। ২০ বছর আগে গাছ থেকে পড়ে আমার দুটি পা পঙ্গু হয়ে যায়। অথচ পুলিশের উপর হামলা চালানোর মিথ্যা মামলা দিয়ে আমাকে ও আমার পরিবারকে হয়রানি করা হচ্ছে।

প্রতিদ্বন্দ্বি স্বতন্ত্র প্রার্থি সাবেক চেয়ারম্যান যুবলীগ নেতা কুতুবুল্লাহ হোসেন কুটি বলেন, নির্বাচনকে কেন্দ্র করে গত একমাসে আমার সমর্থকদের বাড়িঘরে হামলা থেকে শুরু করে অন্তত ২০টি সন্ত্রাসি ঘটনার জন্ম দিয়েছে হাল আমলের আওয়ামীলীগ কর্মীরা। সোমবার ভোরে পূর্ব শ্রীকোল গ্রামে আমার সমর্থিত ১৪টি বাড়িতে ব্যাপক ভাবে ভাংচুর চালানো হয়েছে। এ ঘটনায় স্থানীয় বিএনপি নামধারি সন্ত্রাসিরাও অংশ নিয়েছে। অথচ এ বিষয়ে একেবারেই নির্বিকার আওয়ামীলীগের জেলা নেতৃবৃন্দ। তেমনি পুলিশ প্রশাসনও। শুধু তাই নয় যারা ক্ষতিগ্রস্থ তাদেরকে আটক করে পুলিশ হয়রানি করছে। পুলিশের পক্ষপাতিত্বের কারণে নামধারি সন্ত্রাসিদের প্রশ্রয় পাচ্ছে। আর ক্ষতিগ্রস্থ গ্রামবাসীরা পুলিশি হয়রানি এবং সন্ত্রাসি হামলার ভয়ে বাড়িঘর ছেড়ে অন্যত্র গিয়ে আশ্রয় নিতে বাধ্য হচ্ছে।

এ বিষয়ে নৌকা মার্কা প্রার্থি মুুতাসিম বিল্লাহ সংগ্রামের সঙ্গে ফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করেও পাওয়া যায়নি। তবে জেলা আওয়ামীলীগ সাধারণ সম্পাদক পঙ্কজ কুণ্ডু বলেন, সাবেক চেয়ারম্যান কুটির লোকজন প্রতিদিনই আওয়ামীলীগের কর্মীদের মারধর করছে। যার প্রতিবাদ কেউ জানিয়ে থাকতে পারে। কিন্তু তাদের সাথে বিএনপি কর্মিরা আছে কিনা জানিন।

সোমবার ভোরে পূর্ব শ্রীকোল গ্রামে ঘুমন্ত মানুষ এবং তাদের বাড়িঘরে হামলার বিষয়ে শ্রীপুর থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা রেজাউল ইসলাম বলেন, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ কাজ করে যাচ্ছে। ইতোমধ্যেই বেশ কয়েকজনকে আটকও করা হয়েছে। তবে পুলিশ কোন পক্ষপাতিত্ব করছে না বলে তিনি জানান।

উল্লেখ্য, কেন্দ্র দখল ও ভোট জালিয়াতির অভিযোগে গত ২৩ এপ্রিল অনুষ্ঠিত তৃতীয় ধাপের ইউপি নির্বাচনে শ্রীকোল ইউনিয়নের একটি কেন্দ্রের ভোট গ্রহণ বাতিল ঘোষণা করা হয়। এখনো ওই কেন্দ্রের ভোটগ্রহণের তারিখ নির্ধারিত হয়নি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Logo_image
সম্পাদক: জাহিদ রহমান
নির্বাহী সম্পাদক: আবু বাসার আখন্দ
প্রকাশক:: জাহিদুল আলম
যোগাযোগ:
পৌর সুপার মার্কেট ( দ্বিতীয় তলা), এমআর রোড, মাগুরা।
ফোন: ০১৯২১১৬১৬৮৭, ০১৭১৬২৩২৯৬২
ইমেইল: maguraprotidin@gmail.com