প্রথম পাতা » Featured » মাগুরায় ঘুসের টাকা না পেয়ে নারী কর্মকর্তাকে নির্যাতন করে হাসপাতালে প্রেরণ

মাগুরায় ঘুসের টাকা না পেয়ে নারী কর্মকর্তাকে নির্যাতন করে হাসপাতালে প্রেরণ

মাগুরায় ঘুসের টাকা না পেয়ে নারী কর্মকর্তাকে নির্যাতন করে হাসপাতালে প্রেরণ

প্রতিদিন ডেস্ক : মাগুরার শালিখা উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আনসার নিয়োগের বিপরীতে চাহিদা মোতাবেক পৌনে দুই লক্ষ টাকা উৎকোচ না দেওয়ায় শালিখা উপজেলা আনসার কমাণ্ডার মমতাজ বেগমকে শারীরিকভাবে নির্যাতন করে হাসপাতালে পাঠিয়েছেন মাগুরার ভারপ্রাপ্ত জেলা আনসার কমাণ্ডার আহসান উল্লাহ। অসুস্থ্য অবস্থায় রাত সাড়ে ৯টার দিকে তাকে মাগুরা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

মাগুরা সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধিন শালিখা উপজেলা আনসার কমাণ্ডার মমতাজ বেগম অভিযোগ করেন, আগামি ৭ মে শালিখা উপজেলার ৭টি ইউনিয়নের ৬৮টি কেন্দ্রের জন্য আনসার নিয়োগের যাচাই ছিল শনিবার। সকাল থেকে রাত অবদি জেলা আনসার কমাণ্ডারের উপস্থিতিতে যাচাই বাছাই চলে। প্রতিটি কেন্দ্রের জন্য ৪ জন অস্ত্রধারি এবং ১৩ জন সাধারণ সদস্য সর্বমোট ১৭ জন করে আনসারের নিয়োগ চূড়ান্ত করার কথা। কিন্তু রাত ৮টার দিকে জেলা আনসার কমাণ্ডার আহসান উল্লাহ নিয়োগ চূড়ান্ত না করেই ফিরে যাবার উদ্যোগ নিচ্ছেন। এমন সময় তার কাছে নিয়োগ চূড়ান্তকরণের অবস্থা জানতে চাইলে তিনি জন প্রতি অস্ত্রধারি বাদে বাকি ৮শত ৮৪ জন সাধারণ আনসার নিয়োগের জন্য মাথাপিছু ২০০ টাকা হারে আদায় করে দিতে বলেন।

মমতাজ বেগম বলেন, একেকজন আনসারের নির্বাচনী ডিউটির বিপরীতে খাওয়া, যাতায়াত সহ সব ধরণের ভাতা মিলিয়ে সর্বসাকুল্যে ১ হাজার ৫শত ৮০ টাকা হারে পেয়ে থাকে। কিন্তু আনসার কমাণ্ডার আহসান উল্লাহ সাহেব এই ৮শত ৮৪ জন আনসারের কাছে থেকে ২শ টাকা হারে সর্বমোট ১ লক্ষ ৭৬ হাজার ৮ শত টাকা আদায় করে দেওয়ার দাবি করেন। কিন্তু এটি আদায় করা সম্ভব নয় এমন কথা তাকে জানালে তিনি তাকে ‘মেরুদণ্ডীন অফিসার’ বলে গালি দেন। এ সময় কথার প্রতিবাদ জানালে তিনি ‘শালি’ ইত্যাদি অকথ্য নানা শব্দ ব্যবহার করে গালি গালাজ করতে করতে পায়ের বুট দিয়ে লাথি মারলে অজ্ঞান হয়ে পড়েন।
ঘটনাস্থলে উপস্থিত আড়পাড়া ইউনিয়ন কমাণ্ডার আবুল হোসেন, বুনাগাতি ইউনিয়ন আনসার কমাণ্ডার ননী গোপাল বিশ্বাস সহ আরো অনেকে জেলা কমাণ্ডারের এমন আচরণে বিস্ময় প্রকাশ করেছেন।

আনসার কমাণ্ডার ননী গোপাল বিশ্বাস বলেন, প্রচণ্ড গরমের মধ্যে সারাদিন পরিশ্রম করে সকলেই ক্লান্ত ছিলেন। এমন একটি অবস্থায় ম্যাডামের উপর শারীরিকভাবে আক্রমন অগ্রহণযোগ্য।

এদিকে শালিখা উপজেলা আনসার কমাণ্ডার মমতাজ বেগমের উপর শারীরিক নির্যাতন এবং অশালিন আচরণের বিষয়টি অস্বীকার করেছেন মাগুরা জেলার দায়িত্বপ্রাপ্ত আনসার কমাণ্ডার আহসান উল্লাহ। তিনি বলেন, শালিখা উপজেলা আনসার কমাণ্ডার আগে থেকে কিছু আনসারকে নির্বাচিত করে রেখেছিলেন। যাচাই বাছাই শেষে তাদেরকে নিয়োগ না দেওয়ায় তিনি আমার বিরুদ্ধে এসব অভিযোগ এনেছেন। তার অভিযোগের সবটুকুই মিথ্যা।

মন্তব্য (1)

  1. আরমান খান says:

    যে আনসার সরাসরি ঘুষ দাবি করছে,এবং যখন বুঝলো আর পাওয়া সম্ভব নয় তখন অধিনস্থকে মানষিক ও শারীরিক নির্যাতন করেছে। সে তো মানুষ নয়, ঘুষখোর। এসব ঘুষখোর জানোয়ারদের সরকার কেন পরিস্কার করেনা ? সরকার কি তাদের বেতন দেয় না ? যে ঘুষ খেতে হবে ? কবে বাংলাদেশ মুক্তি পাবে ? এইসব দুর্নীতিবাজ, ঘুষখোর প্রেতাত্মাদের কাছ থেকে। হায়রে বাংলা মা জননী এইটা দেখার জন্য মুক্তিফৌজরা দেশ স্বাধীন করেনি, করেছিল এগুলো যেন আর দেখতে না হয়। হচ্ছে উল্টোটা,তাকে বরখাস্ত করাসহ কঠিন শাস্তি দেওয়া হোক ঐ ঘুষখোর শয়তানটাকে।।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Logo_image
সম্পাদক: জাহিদ রহমান
নির্বাহী সম্পাদক: আবু বাসার আখন্দ
প্রকাশক:: জাহিদুল আলম
যোগাযোগ:
পৌর সুপার মার্কেট ( দ্বিতীয় তলা), এমআর রোড, মাগুরা।
ফোন: ০১৯২১১৬১৬৮৭, ০১৭১৬২৩২৯৬২
ইমেইল: maguraprotidin@gmail.com