প্রথম পাতা » কৃষি » পাট নিয়ে হতাশায় পুড়ছে কৃষক

পাট নিয়ে হতাশায় পুড়ছে কৃষক

পাট নিয়ে হতাশায় পুড়ছে কৃষক

মাগুরা ডেস্ক ঃ পাট নিয়ে হতাশায় পুড়ছে কৃষক। তীব্র খরায় ক্ষেতে লাগানো পাটগাছ নষ্ট হয়ে যাওয়ায় এ বছর মাগুরায় পাটের উৎপাদন পচিশ শতাংশ কমে যাওয়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে।
জেলার বিভিন্ন পাট ক্ষেত ঘুরে দেখা গেছে, গত একমাস ধরে প্রবাহমান দাবদাহে ও খরায় মাঠের পর মাঠ পাটগাছ শুকিয়ে গেছে। গাছের পাতা তামাটে রং ধারণ করে কুঁকড়ে যা”েছ। দেখলে মনে হয় আগুনে পুড়ে গেছে গাছ।
মাগুরার সদর উপজেলার মালিকগ্রামের কৃষক বাহারুল শেখ জানান, গত কয়েক বছর পাটের আবাদ ভাল হওয়ায় এ বছর তিনি অতিরিক্ত এক বিঘা জমিতে পাটের আবাদ করেছেন অতিরিক্ত লাভের আশায়। আবাদের শুরুতেই তিনি জমিতে দুই বার সেচ দিয়েছেন। কিš‘ কোন সময় মতো বৃদ্ধি না হওয়ায় পাটগাছ রোদে পুড়ে নুইয়ে পড়েছে।
এ অব¯’া শুধু বাহারুল শেখই নয়। একই অব¯’া জেলার শালিখা, মহম্মমদপুর, শ্রীপুর উপজেলার সবখানেই।
সদর উপজেলার চাদপুর গ্রামের কৃষক মোফাজ্জেল হোসেন জানান, রোদে তার ক্ষেতের পাট গাছে ব্যপক ক্ষতি হয়েছে। আবাদের পর যে গাছ অন্তত পক্ষে দুই থেকে তিন হাত হবার কথা। সেখানে পানির অভাবে ও ক্ষরায় গাছ বাড়েনি। এতে করে তিনি এবার ক্ষেত থেকে কোন সুফল পাবেন না। বরং পুজি হারিয়ে পথে বসতে হবে।
মাগুরা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে, চলতি মৌসুমে জেলার চারটি উপজেলায় এবার ৩২ হাজার ৭৭২ হেক্টরে পাট আবাদের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়। যার মধ্যে আবাদ হয়েছে ৩৩ হাজার ৫৯০ হেক্টরে। সে হিসেবে ৮১৮ হেক্টের বেশি জমিতে পাট চাষ হয়েছে। আবাদকৃত পাটের মধ্যে সদর উপজেলা ৯ হাজার ৭০০ হেক্টর, মহম্মদপুরে ১০ হাজার ৮০০ হেক্টর, শালিখায় ৪ হাজার হেক্টর এবং শ্রীপুর উপজেলায় ৯ হাজার ৯০ হেক্টরে আবাদ হয়েছে। এক্ষেত্রে উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ৪ লক্ষ ৩৬ হাজার ৬৭০ বেল। কিš‘ দাবদাহ না কমলে জেলায় আবাদকৃত পাটের উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা ব্যহত হবার সম্ভাবনা রয়েছে বলে আশঙ্কা ব্যক্ত করেছেন তারা।
সদর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা সুব্রত কুমার চক্রবর্তি জানান, তীব্র খরায় জেলার আবাদৃকত জমির মধ্যে ২০ থেকে ২৫ শতাংশ পাটগাছ ক্ষতিগ্র¯’ হয়েছে। তবে বৃষ্টিপাত শুরু হলে ক্ষতির পরিমাণ কিছুটা কমে আসবে। এছাড়া প্রচন্ড খরায় আবাদকৃত ক্ষেতে মাকড়ের আক্রমনও কমবেশি দেখা যা”েছ। তবে বৃষ্টি হলে প্রাকৃতিক নিয়মেই এটি নিয়ন্ত্রণে চলে আসবে। এ ছাড়া ক্ষেতের মাকড় প্রতিরোধের জন্য কৃষকদের প্রতি দশ শতাংশ জমিতে ৭০ গ্রাম থিয়োভিট ওষুধ দশ লিটার পানিতে গুলিয়ে ¯েপ্র করার পরামর্শ দিয়েছেন তিনি।
মাগুরা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক পার্থ প্রতীম সাহা বলেন, দাবদাহের কারণে জেলার পাটের উৎপাদন অন্তত ২৫ শতাশং ক্ষতির সম্ভাবনা রয়েছে। তবে উপযুক্ত বৃষ্টি হলে এই ক্ষতি পুশিয়ে নেয়া সম্ভব হবে বলে তিনি আশা করছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Logo_image
সম্পাদক: জাহিদ রহমান
নির্বাহী সম্পাদক: আবু বাসার আখন্দ
প্রকাশক:: জাহিদুল আলম
যোগাযোগ:
পৌর সুপার মার্কেট ( দ্বিতীয় তলা), এমআর রোড, মাগুরা।
ফোন: ০১৯২১১৬১৬৮৭, ০১৭১৬২৩২৯৬২
ইমেইল: maguraprotidin@gmail.com