প্রথম পাতা » মাগুরা সদর » পুলিশ পত্নী মিতু হত্যা: স্তম্ভিত মাগুরাবাসী

পুলিশ পত্নী মিতু হত্যা: স্তম্ভিত মাগুরাবাসী

পুলিশ পত্নী মিতু হত্যা: স্তম্ভিত মাগুরাবাসী

বিশেষ সংবাদদাতা: মাগুরার বাসিন্দা এসপি মো. বাবুল আক্তার মাগুরাবাসীর কাছে কিছুটা পরিচিত থাকলেও তাঁর স্ত্রী মাহমুদা খানম মিতু পরিবার পরিজন এবং শুভাকাঙ্খীদের বাইরে সেভাবে পরিচিত ছিলেন না। মিতু ছিলেন একেবারেই এক সাদামাটা গৃহবধূ। ঘরসংসার নিয়েই ব্যস্ত থাকতেন। স্বামীর কর্মস্থল চট্টগ্রাম থাকার কারণে মাঝে মাঝে মাগুরায় নিজবাড়িতে আসতেন। কিন্তু কাল  গণমাধ্যম আর সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে মাগুরাবাসী জানতে পারে ৫ জুন সকালে চট্টগ্রামে নিষ্ঠুরভাবে ঘাতকদের হাতে নিহত মাহমুদা খানম মিতু মাগুরারই একজন। মাগুরাতে জন্ম না হলেও গৃহবধূ হয়ে এসেছিলেন মাগুরাতে।মাগুরার কাউন্সিল পাড়াতেই তাঁদের বাড়ি। স্বামীর চাকরির সুবাদে সর্বশেষ চট্টগ্রামে থাকতেন। স্বভাবতই এই হত্যাকান্ড মাগুরাবাসীকে না কাঁদিয়ে পারেনি।

মাগুরাতে মিতুকে যারা চিনতেন তাঁদের কাছ থেকে জানা গেছে মিষ্টি আলাপ ব্যবহার আর পারিবারিক দায়িত্ববোধে মিতু ছিলেন অনন্য একজন। আর তাইতো দ্রুতই শ্বশুরবাড়িতে এবং চেনা জানা সবার কাছে ভীষণ প্রিয় হয়ে উঠেছিলেন তিনি। শুধু এই নয়, পরিচিত দরিদ্র অসহায়দের তিনি খোঁজ খবর রাখতেন। সবাইকে সাহায্য সহযোগিতা করার সাধ্যমতো চেষ্টা করতেন। নিয়মিত নামাজ পড়তেন। এবারের ঈদ মাগুরাতে করবেন বলে শ্বশুর শ্বাশুড়িকে জানিয়েছিলেন।

মাগুরাবাসী এমন একটি মেয়েকে হারিয়ে যার পর নেই ক্ষুব্ধ। অনেকের মনেই প্রশ্ন খুনীরা এরকম একটি হত্যাকান্ডের মধ্যে দিয়ে কী করতে চাচ্ছে। এই হত্যাকান্ডের তীব্র নিন্দা ব্যক্ত করেছে মাগুরার বিভিন্ন ব্যক্তিবর্গ এবং স্থানীয় বিভিন্ন সামাজিক সংগঠন।মাগুরা সংরক্ষিত আসনের সংসদ সদস্য কামরুল লায়লা জলি এক প্রতিক্রিয়ায় বলেন, ‘এই হত্যাকান্ডের নিন্দা জানানোর ভাষা হারিয়ে ফেলেছি। যারা এই হত্যাকান্ডের সাথে যুক্ত তাদের মূল উৎপাটন করতেই হবে। একই সাথে সাধারণ মানুষকে এই ধরনের বর্বোরচিত হত্যাকান্ডের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াতে হবে’। মাগুরা জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক পঙ্কজ কুমার কুন্ডু বলেন, ‘এই হত্যাকান্ড কোনোভাবেই মেনে নেওয়ার মতো নয়। এটি একটি কাপুরুষোচিত হত্যাকান্ড।মাহমুদা খানম মিতু আমাদের মাগুরায় গৃহবধূ হয়ে এসেছিলেন। এরকম একটি মেয়েকে নৃশংসভাবে হত্যা করা হতে পারে কখনও কল্পনাও করিনি। অত্যন্ত সতর্কতার সাথে এই হত্যাকান্ডের মূল নায়কদের বের করতে হবে।’

জাসদ কেন্দ্রীয় কমিটির নেতা জাহিদুল আলম বলেন, এই হত্যাকান্ড পরিকল্পিত এবং টার্গেটেড। এ ধরণের টার্গেটেড কিলিং-এর মাধ্যমে জঙ্গী গোষ্ঠী সর্বত্র ভীতি ছড়াতে চাচ্ছে। এটিকে বিচ্ছিন্ন ঘটানো ভাবার কোনো অবকাশ নেই। ঘাপটি মেরে থাকা জঙ্গী চক্র একের পর এক যে হত্যাকান্ড ও নাশকতার ঘটনা ঘটিয়ে চলেছে এটি তারই অংশ। এই ঘটনাকে কোনোভাবেই হালকা করে দেখার অবকাশ নেই। জনগণকে ঐক্যবদ্ধ করে এবং সাথে নিয়ে এই ধরনের নির্মম হত্যাকান্ডের জবাব দিতে হবে।

উল্লেখ্য ৫ জুন  সকালে চট্টগ্রামের ব্যস্ততম এলাকা জিইসি মোড়ে দুর্বৃত্তরা ছুরিকাঘাতের পর গুলি করে হত্যা করে বাবুল আক্তারের স্ত্রী মাহমুদাকে। ছেলেকে স্কুলগাড়িতে তুলে দিতে জিইসি মোড়ে আসছিলেন মাহমুদা। এ সময় মোটরসাইকেলে করে তিন যুবক জিইসি মোড় থেকে আসে। চালকের মাথায় হেলমেট ছিল। পেছনে বসা দুজনের মধ্যে মাঝখানে বসা যুবকের হাতে ছুরি ছিল। পেছনে বসা তৃতীয়জনের হাতে ছিল পিস্তল। তারা প্রথমে মোটরসাইকেল দিয়ে মাহমুদাকে ধাক্কা দেয়। কিছু বুঝে ওঠার আগেই মোটরসাইকেলের মাঝে বসা যুবক মাহমুদাকে উপর্যুপরি ছুরিকাঘাত করে। এরপর তৃতীয়জন পিস্তল দিয়ে গুলি করে। প্রথম গুলিটি মিস হয়, দ্বিতীয় গুলি মাহমুদার কপালে লাগে। এরপর দুর্বৃত্তরা মোটরসাইকেল নিয়ে চলে যায়।
জঙ্গিবিরোধী অভিযানে বাবুল আক্তারের সাহসী ভূমিকার কারণে তাঁর স্ত্রী নিশানায় পরিণত হয়েছেন বলে পুলিশের অনেক কর্মকর্তাই মনে করছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Logo_image
সম্পাদক: জাহিদ রহমান
নির্বাহী সম্পাদক: আবু বাসার আখন্দ
প্রকাশক:: জাহিদুল আলম
যোগাযোগ:
পৌর সুপার মার্কেট ( দ্বিতীয় তলা), এমআর রোড, মাগুরা।
ফোন: ০১৯২১১৬১৬৮৭, ০১৭১৬২৩২৯৬২
ইমেইল: maguraprotidin@gmail.com