প্রথম পাতা » Featured » সাকিবের পথ ধরে আসুক মাগুরার আরও তরুণ

সাকিবের পথ ধরে আসুক মাগুরার আরও তরুণ

সাকিবের পথ ধরে আসুক মাগুরার আরও তরুণ

আশির দশকে ফুটবল বলতে বাংলাদেশের ক্রীড়ামোদীরা যখন ঘোর উন্মতাল, তখন মাগুরায় তার সবটুকুই ছিল ফুটবলার   সৈয়দ নাজমুল হাসান লোভনকে ঘিরে। ফুটবল আর লোভন নামটি প্রায় সমার্থক হয়ে উঠেছিল। সে সময় মাগুরা, ফরিদপুর, যশোর, খুলনা বা কুষ্টিয়ার কোনো ফুটবল মাঠে লোভন খেলবে জানলে শুধু তাঁর খেলা দেখার জন্যেই এসে হাজির হতো এমন ফুটবল দর্শকেরও কমতি ছিল না। ক্রীড়ামোদীদের কাছে জনপ্রিয়তায় তিনি ছিলেন সবার শীর্ষে। ফুটবল ক্যরিয়ারের ঠিক উত্থানের সময় সুদর্শন এবং তারুণ্যদীপ্তময় সৈয়দ নাজমুল হাসান লোভন যদি দীর্ঘ ইনজুরি সমস্যায় না পড়তেন তাহলে হয়তো ফুটবলের কিংবদন্তী সালাহউদ্দিনের পর তার নামটিই বেশি আলো ছড়াতো। দেশের ফুটবল বিশেষজ্ঞরা এখনও বলেন দারুণ এক প্রতিভাবন ফুটবলার ছিলেন লোভন। কিন্তু ভাগ্য খারাপ হওয়ার কারণেই তাঁর ফুটবল ক্যারিয়ার প্রস্ফুটিত হতে পারেনি। তবে সেটা না হলেও মাগুরাবাসীর কাছে ফুটবল আইকন বলতে এখনও সৈয়দ নাজমুল হাসান লোভন। ফুটবল না খেলে রুপালী পর্দার নায়কও যিনি হতে পারতেন নির্বিবাদে। সবমিলিয়ে  মাগুরাবাসির মনে লোভনকে নিয়ে পুরনো আক্ষেপটা এখনও রয়ে গেছে বললে ভুল হবে না।
সৈয়দ নাজমুল হাসান লোভনের পর জাতীয় পর্যায়ের ফুটবলে সেই অর্থে মাগুরার আর কারো উত্থান ঘটেনি। তবে ফুটবল ঘিরে মাগুরাবাসীর যে আক্ষেপ ছিল তা পরবর্তীতে শতভাগ পুরণ করেন মাগুরার মাটির সন্তান বাংলাদেশ জাতীয় দলের এই সময়ের নির্ভরযোগ্য ক্রিকেটার সাকিব আল হাসান। বিশ্ব ক্রিকেটে দুর্ধান্ত পারফরমেন্স দেখিয়ে মাগুরা নামটিকে যিনি অনেক উচ্চতায় নিয়ে গেছেন। মাগুরায়য় জন্ম নেওয়া এই তরুণের যে এতোটা উত্থান হবে এটি কখনই কারো কল্পনাতেই ছিল না। এর প্রাসঙ্গিক কিছু কারণও ছিল। বরাবরই মাগুরাতে ফুটবলই বেশি জনপ্রিয় ছিলÑক্রিকেট নয়। এমন কী যে সাকিব বিশ্বক্রিকেটের এখন নাম্বার ওয়ান তাঁর বাবাও ছিলেন আপাদমস্তক ফুটবলার। পেশাজীবী ফুটবলার বললেও ভুল হবে না। মাগুরা, ঝিনেদা, যশোরের এমন কোনো মাঠঘাট নেই সেখানে সাকিবের বাবা মাশরুর রেজা কুটিল ফুটবল খেলেননি। পরিশ্রমী এক ফুটবলার হিসেবে খ্যাত ছিলেন সর্বত্র।
ফুটবলারের ছেলে ফুটবলার হবেনÑ এমন বিশ্বাস ভেঙ্গে সাকিব হয়েছেন বিশ্বসেরা এক অলরাউন্ডার  ক্রিকেটের। চমৎকার পারফরমেন্সের ধারাবাহিকতায় সম্প্রতি আবারও র‌্যাংকিং-এর সেরা তালিকায় তিনি। সাকিব বাংলাদেশের অহংকার, গৌরব। মাগুরাবাসীর জন্যে আরও একটু বেশি। কেননা এর আগে মাগুরাতে এরকম আর কোনো মহাতারকার আর জন্ম হয়নি। সাকিব ছাড়া বাংলাদেশ ক্রিকেট দল এখন অচিন্তনীয়। সমসাময়িক সময়ে ম্যাচে সাকিবের ধারাবহিকতাই সবচেয়ে ভালো। সর্বশেষ ভারতের সাথে খেলায়ও মর্মে মর্মে তিনি সেটা বুঝিয়ে দিলেন। বিশ্বের ক্রিকেট বিশেষজ্ঞদের চোখে সাকিব তাই সেরা এক আইকন।
আমরা মাগুরাবাসী আবশ্যই সাকিবকে নিয়ে আরও বেশি গর্বিত। গর্বিত হওয়ার মতোইতো ব্যাপার। এর আগে মাগুরার আর কেউ-ই নিজেকে এতোটা উচ্চতায় উঠাতে পারেননি, যতোটা উঠিয়েছেন একজন সাকিব। ক্রিকেটের এই রাজকুমারের উত্থানের পেছনে মাগুরাবাসীর আশীর্বাদ আছে। আর ঐ যে আশির দশকে যারা মাগুরায় ধানক্ষেতে, পাটক্ষেতে দিনভর ফুটবল খেলতেন তাদেরও আশীর্বাদ আছে। তারাইতো দেখিয়ে গেছেন খেলাধূলার যত পথ। তবে আমরা মাগুরাবাসী এক সাকিবেই সীমাবদ্ধ থাকতে চাই না। মাগুরার মাটি থেকে  আরও সাকিবের উত্থান প্রয়োজন। ছোট জেলা সাতক্ষীরা থেকে হালে উঠে এসেছেন সৌম্য সরকার। আর নতুন তারকা মুস্তাফিজতো সুপারহিট। সাতক্ষীরার আরও কয়েকজন তরুণ নাকি অপেক্ষা করছেন জাতীয় দলে নিজেদেরকে ঠাঁই করে নিতে। আমরাও তাই ক্রিকেটে সাকিবের পাশাপাশি মাগুরার আরও অন্যান্য তরুণদের দেখতে চাই। আশা করি মাগুরা জেলা ক্রীড়া সংস্থা আরও সাকিবের খোঁজে তৎপর থাকবেন। কেননা সাকিবের চেয়ে বড় অনুপ্রেরণা এখন আর কীইবা আছে।

মিলি রহমান

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Logo_image
সম্পাদক: জাহিদ রহমান
নির্বাহী সম্পাদক: আবু বাসার আখন্দ
প্রকাশক:: জাহিদুল আলম
যোগাযোগ:
পৌর সুপার মার্কেট ( দ্বিতীয় তলা), এমআর রোড, মাগুরা।
ফোন: ০১৯২১১৬১৬৮৭, ০১৭১৬২৩২৯৬২
ইমেইল: maguraprotidin@gmail.com