প্রথম পাতা » ফিচার » বেঁচে থাকুক আমাদের ‘বেবী অফ নাজমা’

বেঁচে থাকুক আমাদের ‘বেবী অফ নাজমা’

বেঁচে থাকুক আমাদের ‘বেবী অফ নাজমা’

জাহিদ রহমান: মাগুরার দোয়ার পাড়ে মায়ের পেটে থাকা অবস্থায় গুলিবিদ্ধ কন্যাশিশুটি পৃথিবীর আলোতে এলেও তার নাম এখনও রাখা  হয়নি। নাম রাখবে কীভাবে, ওর জীবন বাঁচাতেই এখন সবাই ব্যস্ত। দেশের শীর্ষ দৈনিক প্রথম আলো লিখেছে হাসপাতালের খাতায় ওর নাম লেখা হয়েছে ‘বেবি অফ নাজমা’। কন্যাশিশুটির মায়ের নাম নাজমা বেগম। গত ২৩ জুলাই দোয়ার পাড়ে ছাত্রলীগের দুগ্রুপ সশস্ত্র সংষর্ষে লিপ্ত হলে মা নাজমা গর্ভের কন্যাসন্তানসহ গুলিবিদ্ধ হন। গুলিবিদ্ধ নাজমাকে দ্রুত হাসাপাতালে নেওয়া হয়। চিকিসকরা দ্রুতই সিদ্ধান্ত নিয়ে দুই ঘণ্টা ধরে অস্ত্রোপচার শেষে গর্ভের শিশুটিকে পৃথিবীর আলোয় আনেন। কিন্তু শিশুটিও গুলিবিদ্ধ হওয়ায় চিকিৎসকারা নিজেদের সীমাবদ্ধতা বিবেচনায় এনে আর ঝুঁকি নিতে চান না। সিদ্ধান্ত দেন উন্নত চিকিৎসার্থে তাকে দ্রুত ঢাকায় নেওয়া হোক। নাজমার আত্মীয়স্বজনেরা কন্যাসন্তানটিকে দ্রুত ঢাকায় নিয়ে আসেন এবং ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করেন। ঐখানেই এখন ওর চিকিৎসা চলছে।
ঢাকা মেডিকেল কলেজে জীবনমৃত্যুর সন্ধিক্ষণে ‘বেবি অফ নাজমা’। যদিও চিকিৎসকরা দারুণরকম আশাবাদী তার বেঁচে থেকে নিয়ে। চিকিৎসকরা তাকে বাঁচিয়ে রাখকে প্রাণন্তকর চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। পৃথিবীতে আসার আগেই মায়ের পেটে থাকতেই কন্যাশিশুটি আলোচনায় উঠে আসে। যে মায়ের পেট সবচেয়ে নিরাপদ সেখানে থাকা অবস্থায় কন্যাশিশুটি গুলিবিদ্ধ হয়। একটি বুলেট তার পেট ভেদ করে বেরিয়ে যায়। গুলিটি মায়ের পেটে থাকা এই কন্যাশিশুটির পিঠ দিয়ে ঢুকে বুক দিয়ে বেরিয়ে যায় বলে চিকিৎকরা জানিয়েছেন। সর্বশেষ খবর অনুযায়ী চিকিৎসকরা কন্যাশিশুটির বেঁচে থাকার ব্যাপারে বেশ আশাবাদী। তবে কিছু ঝুঁকিও রয়ে গেছে বলে চিকিৎসকরা জানিয়েছেন।
মাগুরায় এই কন্যাশিশুটকে নিয়ে সর্বত্র আলোচনা চলছে। অনেকেই ঘটনাটি শুনে স্তম্ভিত হয়েছেন। স্তম্ভিত হওয়ার মতোই ঘটনা। মায়ের পেটে থাকতেই গুলিবিদ্ধ হওয়ার ঘটনা বিরলই বটে। মাগুরাবাসীও এরকম ঘটনা শোনেনি। স্বভাবতই আলোচনার শেষ নেই। দেশব্যাপীও এখন ‘বেবি অফ নাজমা’কে নিয়ে আলোচনা চলছে। এদিকে দূর থেকে হাজারো মানুষ যেমন উদ্বিগ্ন তেমনি ‘বেবি অফ নাজমা’র প্রতি ভালোবাসাও ছুঁড়ে দিচ্ছেন। ছোট্ট শিশুর চোখের জল দেখে অনেকেই ভীষণ মন খারাপও করছেন।
কিন্তু যাদের কারণে এই ছোট্ট শিশুটির দুর্গতি, সীমাহীন কষ্ট তারা কী মর্মাহত, বেদনাহত? তাদের উপলব্ধি কী? বিভিন্ন বিষয় নিয়ে ছাত্রলীগের অসহিষ্ণু একটি চক্রের মধ্যে অভ্যন্তরীণ দ্বন্ধ নতুন কিছু নয়। এই দ্ধন্ধের বহিপ্রকাশ আমরা প্রায়ই দেখি। মাগুরাতে যা ঘেেটছে তা হয়ত অনেকে বলবেন বিচ্ছিন্ন ঘটনা। কিন্তু গর্ভে থাকতেই একটি শিশু গুলিবিদ্ধ হয়ে হাসপাতালে কাতরাবে এমন সমাজ বেমানান। এমন ঘটনা আমাদের চেতনা, বিশ্বাসের পরিপন্থী।
‘বেবি অফ নাজমা’র জন্যে রইল শুভকামনা। ও বেঁচে থাকুক। বেড়ে উঠুক। ওরা গুলিবিদ্ধ দেহ সমাজের দৃবত্তদের বিরুদ্ধে ঘৃণা তৈরি করুক। ওর নাম এখনও রাখা হয়নি। ওর জন্যে হয়ত এই নামটিই হতে পারে ‘বিজয়ীনি’।

জাহিদ রহমান

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Logo_image
সম্পাদক: জাহিদ রহমান
নির্বাহী সম্পাদক: আবু বাসার আখন্দ
প্রকাশক:: জাহিদুল আলম
যোগাযোগ:
পৌর সুপার মার্কেট ( দ্বিতীয় তলা), এমআর রোড, মাগুরা।
ফোন: ০১৯২১১৬১৬৮৭, ০১৭১৬২৩২৯৬২
ইমেইল: maguraprotidin@gmail.com