প্রথম পাতা » Featured » মাগুরায় ইউরিয়া সাারের কৃত্রিম সংকট : প্রশাসনের নজরদারি শুরু

মাগুরায় ইউরিয়া সাারের কৃত্রিম সংকট : প্রশাসনের নজরদারি শুরু

মাগুরায় ইউরিয়া সাারের কৃত্রিম সংকট : প্রশাসনের নজরদারি শুরু

মাগুরা প্রতিদিন ডটকম : সারের পর্যাপ্ত মজুদ থাকা সত্তে¡ও বিসিআইসি’র স্থানীয় সার ডিলার এবং সাব ডিলারদের কারসাজিতে মাগুরায় ইউরিয়া সারের কৃত্রিম সংকট সৃষ্টি করা হয়েছে। এতে করে স্থানীয় কৃষকরা ন্যায্য মূল্যের অতিরিক্ত দামে সার কিনতে বাধ্য হচ্ছেন।

সরকার কৃষক পর্যায়ে সারের খুচরা মূল্য ৫০ কেজির বস্তা প্রতি ৮শ টাকা নির্ধারণ করে দিলেও কৃত্রিম সংকট সৃষ্টির মাধ্যমে ডিলাররা কৃষকদের কাছে ৯শ থেকে ১ হাজার টাকা পর্যন্ত আদায় করছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে, সার বিপননের জন্য এ বছর মাগুরায় বিসিআইসি’র ৩৯ জন ডিলার নিয়োগ দিয়েছে। এর মধ্যে সদর উপজেলায় ১৪ জন, শ্রীপুর উপজেলায় ৯ জন এবং শালিখা এবং মহম্মদপুর উপজেলায় ৮ জন করে ডিলার নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। এ ছাড়াও জেলার ১টি পৌরসভা এবং ৩৬টি ইউনিয়নের জন্য ৯ জন করে সাব ডিলার নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। যাদের প্রত্যেকের ঘরেই পর্যাপ্ত সার মজুদ রয়েছে বলে সূত্রটি নিশ্চিত করেছে।

তবে বর্তমান আমন মৌসুমের এই সময়টিতে ইউরিয়া সারের পর্যাপ্ত চাহিদা থাকায় অসাধু ওইসব ব্যবসায়ীরা কৃষকদের চাহিদার বিষয়টি মাথায় রেখে কৃত্রিম সংকট সৃষ্টির মাধ্যমে অতিরিক্ত মুনাফা আদায়ের চেষ্টা করছে। এ অবস্থায় স্থানীয় কৃষকদের মধ্যে দারুন অসন্তোষ বিরাজ করলেও সংশ্লিষ্ট দায়িত্বশীল গোষ্ঠির নজরদারির অভাব প্রকটভাবে দেখা গিয়েছে।

স্থানীয় সার ব্যবসায়ীদের সাথে আলাপ করে জানা যায়, বিসিআইসির তালিকাভূক্ত ডিলাররা মিলগেট থেকে ৭শ টাকা বস্তা হিসেবে সার ক্রয় করেন। যা সাব ডিলারদের কাছে ৭৭৫ টাকা দরে এক বস্তা সার বিক্রির কথা। কিন্তু স্থানীয় ডিলাররা সাব ডিলারদের কাছ থেকে বস্তা প্রতি ইউরিয়া সারের দাম ৮শ টাকা হারে আদায় করছেন। যে কারণে সাব ডিলাররাও বেশি দামে কৃষকদের কাছে বিক্রি করছেন। আবার অতিরিক্ত মুনাফা আদায়ের লক্ষ্যে সাব ডিলারদের অনেকেই কৃত্রিম সংকট সৃষ্টির মাধ্যমে কৃষকদের কাছ থেকে বস্তা প্রতি অতিরিক্ত ২শ টাকা পর্যন্ত আদায় করছেন। অনুমোদন বিহিন অনেক ব্যবসায়ীও এই ব্যবসায়ে যুক্ত হয়ে কৃষকদের প্রতারিত করছেন বলে ও অভিযোগ রয়েছে। ফলে সংশ্লিষ্ট বিভাগের নজরদারির অভাবে এক সপ্তাহ ধরে জেলার বিভিন্ন বাজারে এসব অসাধু সার ব্যবসায়ীরা কৃত্রিম সংকট সৃষ্টির মাধ্যমে বাজার অস্থিতিশীল করে তুলতে সক্ষম হয়েছে বলে অভিযোগ।

মাগুরা সদর উপজেলার পাইকেল গ্রামের কৃষক আমিরুল ইসলাম জানান, সরকার এক বস্তা ইউরিয়া সারের দাম ৮শ টাকা বেধে দিলেও স্থানীয় বরই বাজারের বিসিআইসি’র সাব ডিলার আকরুল মণ্ডল গতকাল সোমবার সকালে তার কাছ থেকে ১ হাজার টাকা আদায়ের চেষ্টা করেন। পরে অনেক অনুনয় বিনয় করার পর তিনি ৯শ টাকায় বিক্রি করেন।

একই গ্রামের অপর কৃষক আতিয়ার রহমান অভিযোগ করেন, সার নিতে গেলেই বলে সার নেই। আবার বেশি দাম দিলে পাওয়া যাচ্ছে। ১০ কেজি সারের জন্য সকাল থেকে দোকানের সামনে বসে থাকলেও সার নেই এমন কথা বলে সার ব্যবসায়ী আকরুল তাকে ফিরিয়ে দিয়েছে।

এ বিষয়ে বরই বাজারের সার ব্যবসায়ী আকরুল মণ্ডল জানান, প্রতিদিন তার অন্তত ১০ বস্তা সার দরকার। কিন্তু আলোকদিয়া বাজারের সার ডিলার মাসুদুর রহমান ৫ বস্তার বেশি দেয় না। যে কারণেই কৃষকদের চাহিদা অনুযায়ী সার দিতে পারছেন না বলে তিনি জানান। তবে কৃষকদের কাছ থেকে আদায়কৃত অতিরিক্ত অর্থ ফেরত দেওয়ার প্রতিশ্রতি দেন তিনি।

মাগুরার সদর উপজেলার বারাশিয়া গ্রামের ফারুক হোসন, এলেম মিয়া, আকবর হোসেন সহ বগিয়া, কসুন্দি, জগদল ও চাউলিয়া ইউনিয়নের বিভিন্ন কৃষকদের কাছ থেকে একই রকম অভিযোগ পাওয়া গেছে। সার ব্যবসায়ীরা প্রয়োজন মতো সার না দেওয়ায় চাষাবাদ ব্যহত হচ্ছে বলে তারা ক্ষোভ প্রকাশ করেন।

রামনগর বাজারের সার ব্যবসায়ী সাহিদুল ইসলাম অনু বলেন, স্থানীয় সারের ডিলার আবদুর রহমানের কাছ থেকে সার না পেয়ে বাধ্য হয়ে দূরের নাকোল বাজার থেকে বস্তা প্রতি ৮শ ১০ টাকা দরে সার কিনে লাভ রেখে বিক্রি করছেন।

এ বিষয়ে মাগুরা জেলা সার ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক আবদুর রহমানের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে সাব ডিলারদের বক্তব্যকে অসত্য বলে দাবি করে তিনি বলেন, মাগুরায় সারের কোন সংকট নেই। তবে মনিটরিংয়ের দূর্বলতার কারণে জেলায় অনুমোদিন বিহিন অনেক ব্যবসায়ী বাজার অস্থিতিশীল করে তুলছে।

মাগুরা জেলায় ইউরিয়া সারের কৃত্রিম সংকটের বিষয়ে জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক পার্থ প্রতিম সাহা বলেন, মাগুরায় ২২ সদস্য বিশিষ্ট একটি সার মনিটরিং কমিটি রয়েছে। যারা নিয়মিত বিষয়টি তদারকি করছে। তবে সুনির্দিষ্টভাবে কোন ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে অভিযোগ পাওয়া গেলে তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এদিকে ইউরিয়া সারের কৃত্রিম সংকটের খবর পেয়ে মাগুরা জেলা ও উপজেলা প্রশাসন তাদের মনিটরিং জোরদার করার পাশাপাশি কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের সহযোগিতায় জেলার চার উপজেলা সদর ও বিভিন্ন বাজারে অভিযান চালিয়ে অবৈধ কয়েকজন সার ব্যবসায়ীকে মোবাইল কোর্টের মাধ্যমে জরিমানা করেছেন বলে খবর পাওয়া গেছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Logo_image
সম্পাদক: জাহিদ রহমান
নির্বাহী সম্পাদক: আবু বাসার আখন্দ
প্রকাশক:: জাহিদুল আলম
যোগাযোগ:
পৌর সুপার মার্কেট ( দ্বিতীয় তলা), এমআর রোড, মাগুরা।
ফোন: ০১৯২১১৬১৬৮৭, ০১৭১৬২৩২৯৬২
ইমেইল: maguraprotidin@gmail.com