প্রথম পাতা » শালিখা » ‘রুটি মেকার’: বুনাগাতির হুমায়ুন কবির উদ্ভাবিত রুটি বানানোর মেশিন

‘রুটি মেকার’: বুনাগাতির হুমায়ুন কবির উদ্ভাবিত রুটি বানানোর মেশিন

‘রুটি মেকার’: বুনাগাতির হুমায়ুন কবির উদ্ভাবিত রুটি বানানোর মেশিন

প্রতিদিন ডেস্ক: রুটি বানানোর মেশিন তৈরি করে সবাইকে তাক লাগিয়ে দিয়েছেন মাগুরার শালিখা উপজেলার প্রত্যন্ত গ্রাম বুনাগাতির হুমায়ুন কবির। তার উদ্ভাবিত কাঠের তৈরি এই মেশিন এখন দেশ ছাড়িয়ে বিদেশেও জনপ্রিয়তা পেতে শুরু করেছে। ইতোমধ্যে বিশ্বের নামি দাবি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে তার প্রযুক্তিটি মোটা অংকের বিনিময়ে বিক্রির প্রস্তাবও দেয়া হয়েছে। হুমায়ুন কবিরের উদ্ভাবিত এই রুটি মেকার দিয়ে কাঁচা অথবা সেদ্ধ চাল, গম বা ডালের আটা দিয়ে মিনিটে ১৫ থেকে ২০টি রুটি বানানো যায়। শিশু থেকে বৃদ্ধ  যে- কোনো বয়সি মানুষ সামান্য চাপ প্রয়োগ করেই এই মেশিনের সাহায্যে রুটি তৈরি করতে পারেন।
হুমায়ুন কবির পেশায় একজন আইটি বিশেষজ্ঞ। নিজের স্ত্রীর রুটি বানানোর কষ্ট দেখে মেশিন বানানোর চেষ্টা করেন। মাত্র তিন মাসের গবেষণায় তিনি সফল হন। ইতোমধ্যে তিনি নিজের বাড়ি বুনাগাতি গ্রামে কন্যার নাম অনুসারে ‘লাইবা রুটি মেকার’ নামে একটি কারখানা স্থাপন করে স্বল্প পরিসরে উৎপাদন শুরু করেছেন। বিদ্যুৎ ছাড়া সম্পূর্ণ কাঠের তৈরি এ রুটিমেকার দিয়ে কাঁচা বা সেদ্ধ চাল-গম-ডাল-আলুর আটা দিয়ে এক সাথে একাধিক রুটি, লুচি বা ফুচকা তৈরি করা যায়। যেখানে স্বাদের কোন পরিবর্তনই ঘটে না।
সরজমিনে বুনাগাতি গ্রামে লাইবা রুটি মেকার কারখানায় গিয়ে দেখা যায়, সেখানে ১৫ শ্রমিক কাজ করছে। যারা মাসে ১০০ থেকে ১২৫ টি মেশিন তৈরি করতে পারে। এই কারখানায় নিয়োজিত শ্রমিকদের ভিতর  বেশির ভাগাই নারী শ্রমিক। যারা বাড়ির কাজ সেরে দিনের একটি সময় এখানে শ্রম দিয়ে অতিরিক্ত অর্থ উপার্জন করছেন।
লাইবা রুটি মেকারের উদ্ভাবক হুমায়ুন কবিরের সাথে কথা বলে জানা যায়, তার উদ্ভাবিত এই রুটি মেকারের চাহিদা বাজারে প্রচুর থাকলেও উৎপাদন স্বল্পতার কারণে সেই হারে বাজারে সরবরাহ করা সম্ভব হচ্ছে না। লাইবা রুটি মেকারের উপযোগিতার কারণে ইতোমধ্যে অনেকে তার কাছ কাছে সংগ্রহ করে দেশের বাইরেও নিয়ে গেছেন।
হুমায়ুন কবিরের ইচ্ছা ভবিষতে সরকারি সহায়তা পেলে কাঠের পরিবর্তে মেটাল মেশিন তৈরি করবেন। তাহলে তার কারখানায় তৈরি রুটি মেকার দেশের চাহিদা মিটিয়ে দেশের বাইরেও পাঠাতে পারবেন। তিনি বলেন, বাজারে বর্তমানে ভারতের তৈরি বিভিন্ন কোম্পানীর বৈদ্যুতিক রুটি মেকার পাওয়া যায়। কিন্তু  সেটি দিয়ে সেদ্ধ আটার রুটি তৈরি করা সম্ভব না হওয়ায় বাংলাদেশের বাজার ধরতে পারেনি। অন্যদিকে বিদ্যুত বা বিকল্প কোন শক্তির ব্যবহার ছাড়াই লাইবা রুটি মেকার দিয়ে রুটি বানানো যায়। মজার বিষয় হল আটা যে ভাবেই দেওয়া হোক না কেন লাইবা রুটি মেকারে তৈরি রুটি পাতলা এবং চাঁদের মত গোল হবেই।
এ বিষয়ে মাগুরা বিসিক শিল্প সহায়ক কেন্দ্রের উপ-ব্যবস্থাপক মো. জামাল উদ্দিন বলেন, হুমায়ুন কবিরের রুটি মেকার সম্পূর্ণ বিজ্ঞানসম্মত এবং অভিনব। তবে তার উদ্ভাবিত পণ্যটি উৎপাদনে যথাযথ সহায়তা দেয়া সম্ভব হলে এটিকে বৃহৎ রূপ দেয়া সম্ভব। যা থেকে প্রচুর বৈদেশিক অর্থ দেশে আসতে পারে।

মন্তব্য (1)

  1. আরমান খান says:

    যার বাবার অবদান রয়েছে এদেশের স্বাধীনতায়, সেই কুটি মিয়াকে চেয়ারম্যান বানালো না জনগণ, ধিক্কার জানাই ঐ এলাকার সব কুলাঙ্গার পাবলিকদের যারা নিজের বিবেক বিক্রিয় করে, অন্যকে চেয়ারম্যান বানিয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Logo_image
সম্পাদক: জাহিদ রহমান
নির্বাহী সম্পাদক: আবু বাসার আখন্দ
প্রকাশক:: জাহিদুল আলম
যোগাযোগ:
পৌর সুপার মার্কেট ( দ্বিতীয় তলা), এমআর রোড, মাগুরা।
ফোন: ০১৯২১১৬১৬৮৭, ০১৭১৬২৩২৯৬২
ইমেইল: maguraprotidin@gmail.com