প্রথম পাতা » Featured » সোনালী আঁশে ভাগ্য ফিরছে চাষিদের

সোনালী আঁশে ভাগ্য ফিরছে চাষিদের

সোনালী আঁশে ভাগ্য ফিরছে চাষিদের

এস আলম তুহিন :  পাটের আবাদ এবার মাগুরার কৃষকদের জন্য আর্শীবাদ বয়ে এনেছে । উচ্চ ফলনশীল বীজ ও আবহাওয়া অনুকুলে থাকায় এবার পাটের বাম্পার ফলন হয়েছে। লক্ষ্যমাত্রার চেয়েও পাট ভালো উৎপাদন হওয়ায় জেলার পাটচাষীরা খুব খুশী। তাই পাটের হারানো অতীতকে ফিরিয়ে আনতে জেলার পাটচাষীরা স্বপ্ন দেখছেন।
মাগুরা কৃষি সম্প্রসারণ অফিস সূত্রে জানা গেছে, এবার জেলায় মোট পাট আবাদ হয়েছে ৩৩ হাজার ৫৯০ হেক্টর জমিতে । পাটের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ৩২ হাজার ৭৭২ হেক্টর ।
জেলার চার উপজেলায় এবার সদরে ৯ হাজার ৭০০ হেক্টর , শ্রীপুরে ৯ হাজার ৯০ হেক্টর , মহম্মদপরে ১০ হাজার ৮০৯ হেক্টর ও শালিখায় ৪ হাজার হেক্টর জমিতে পাট আবাদ হয়েছে। কৃষি অফিসের মাঠ পর্যায়ের কর্মকর্তারা জানান , এবার আবহাওয়া অনুকুলে থাকায় পাট চাষ ভালো হয়েছে। প্রথম দিকে তীব্র খরার কারণে পাট শুকিয়ে যাচ্ছিল পরে বৃষ্টির হওয়ায় পাট চাষে সতেজতা এসেছে। অন্য বারের তুলনায় এবার জেলায় পাটের বাম্পার ফলন হয়েছে।
ইতিমধ্যে জেলার অধিকাংশ গ্রামে চাষীরা পাট কেটে জাগ দিয়েছেন কৃষকরা। আবার অনেক চাষীরা জাগ দেয়া পাট উঠিয়েছেন।
মাগুরা সদর উপজেলার চাউলিয়া ইউনিয়নের বালিয়াডাঙ্গা গ্রামের নাজিমউদ্দিন জানান, এবার পাট চাষের জন্য আবহাওয়া অনুকুলে থাকায় পাট ভালো হয়েছে। আমি তিন বিঘা জমিতে পাট চাষ করেছি। প্রথম দিকে অনাবৃষ্টি ও প্রচন্ড খরার কারণে পাট গাছ শুকিয়ে যাচ্ছিল। পরে বৃষ্টি হওয়ার কারনে পাটের চাষ ভালো হয়েছে। তিনি আরো জানান, গত বছর থেকে এবার পাটে ভালো ফলন পেয়েছি। তাই আশা করছি পাট চাষে ভালো অর্থ পাব ।
অন্যদিকে, সদর উপজেলার বারাশিয়া গ্রামের টুকু কাজী জানান, অন্যবারের তুলনায় এবার পাট ভালো হয়েছে। দেড় বিঘা জমিতে পাট চাষ করেছি। গত বছর পানির জন্য পাট জাগ দিতে পারিনি কিন্তু এবার প্রচুর বৃষ্টি হওয়ায় খাল-বিল-পুকুর নদীতে পানি থাকায় পাট জাগ দিতে তেমন কষ্ট হয়নি । তাছাড়া এবার মাঠেও প্রচুর পানি থাকায় অনেক পাট চাষী মাঠেতে পাট জাগ দিয়েছেন । পাট চাষের মাঝামাঝি সময় তীব্র খরা হওয়ায় চাষ হওয়া পাটের পাতা শুকিয়ে যাচ্ছিল। পরে বৃষ্টি হওয়ায় পাট চাষ ভালো হয়েছে। আশা করছি এবার ভালো দামে পাট বিক্রি করতে পারব।
জগদল গ্রামে পাট চাষী রফিকুল জানান, গতবারের তুলনায় পাট ভালো বিক্রি করেছি। এবার প্রতি মন পাট ১৬০০ থেকে ১৭০০ টাকা দরে বিক্রি করেছি।
একটু মোটামুটি ভালো পাট ১৪০০-১৫০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। যা গতবারের তুলনায় ৩০০-৪০০ টাকা বেশি। কিন্তু গতবার পাটের দাম পড়ে যাওয়ায় আমরা ন্যায্য দাম পায়নি। ফলে উৎপাদন খরচ না উঠায় আমাদের টাকা ক্ষতি হয়েছে ।
মাগুরা নতুন বাজার পাট ব্যবসায়ী স্বপন কুমার কুন্ডু জানান, নতুন উঠা পাট আমরা বিভিন্ন দামে ক্রয় করছি। মিলশার্ট ধূসর-কালো রংয়ের পাট ১৬০০-১৬৫০ টাকা, কোম্পানীশার্ট সোনালী রংয়ের পাট ১৭০০-১৭২০ টাকা পর্যন্ত কৃষকদের কাছ থেকে আমরা কিনছি। তিনি আরো জানান, গতবারের তুলনায় এবার পাটের দাম ভালো। দাম ভালো পেয়ে এবার কৃষকরাও খুশী। তবে কিছুদিনের মধ্যে পাটের দাম আরো বাড়তে পারে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Logo_image
সম্পাদক: জাহিদ রহমান
নির্বাহী সম্পাদক: আবু বাসার আখন্দ
প্রকাশক:: জাহিদুল আলম
যোগাযোগ:
পৌর সুপার মার্কেট ( দ্বিতীয় তলা), এমআর রোড, মাগুরা।
ফোন: ০১৯২১১৬১৬৮৭, ০১৭১৬২৩২৯৬২
ইমেইল: maguraprotidin@gmail.com