প্রথম পাতা » মাগুরা সদর » দিনভর লুকোচুরি শেষে রাতে আলিকে নিয়ে পুলিশের প্রেস ব্রিফিং

দিনভর লুকোচুরি শেষে রাতে আলিকে নিয়ে পুলিশের প্রেস ব্রিফিং

দিনভর লুকোচুরি শেষে রাতে আলিকে নিয়ে পুলিশের প্রেস ব্রিফিং

প্রতিদিন ডেস্ক : দিনভর লুকোচুরি শেষে পুলিশ অবশেষে বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ১২টার সময় মহম্মদ আলিকে সাংবাদিকদের সামনে উপস্থাপন করেছে। এর আগে সকাল ১০টায় আত্মসমর্পনের জন্য মাগুরা জেলা জজ আদালতে হাজির হলে ডিবি পুলিশ তাকে আদালত প্রাঙ্গণ থেকে আটক করে বলে মহম্মদ আলির পরিবারের পক্ষ থেকে দাবি করা হয়।

আলি শহরের দোয়ারপাড়া এলাকায় মাতৃগর্ভে গুলিবিদ্ধ এবং আবদুল মোমিন ভূইয়া হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় দায়েরকৃত মামলার ২ নম্বর আসামি।

রাত সাড়ে ১২টায় মাগুরা পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে মহম্মদ আলিকে হ্যাণ্ডক্যাপ পরিয়ে সাংবাদিকদের সামনে উপস্থিত করা হয়। এ সময় অতিরিক্ত পুলিশ সুপার একেএম তারিকুল ইসলাম সাংবাদিকদের উদ্দেশ্যে বক্তব্য রাখেন।

তিনি বলেন, সকাল ১০টার সময় মহম্মদ আলিকে পুলিশ মহিলা কলেজ পাড়া এলাকা থেকে গ্রেফতার করে। পরে দিনভর তাকে নিয়ে পুলিশ বিভিন্ন স্থানে অস্ত্র উদ্ধারে যায়। কিন্তু পুলিশ তার সহায়তায় কোন প্রকার অস্ত্র উদ্ধার করতে পারেনি। আইন অনুযায়ী সময়ে পুলিশ তাকে আদালতে উপস্থাপন করবে বলেও তিনি জানান। এছাড়া বুধবার চাঞ্চল্যকর মামলাটির ১৫ নম্বর আসামি সোলায়মানকে ঢাকা থেকে গ্রেফতার করা হয়েছে বলেও প্রেস ব্রিফিং কালে জানানো হয়।

প্রেস ব্রিফিংয়ে অন্যান্যের মধ্যে মাগুরার সহকারী পুলিশ সুপার সুদর্শন কুমার রায়, ডিবি ওসি ইমাউল হক উপস্থিত ছিলেন।

এদিকে সকাল ১০টায় মহম্মদ আলি আত্মসমর্পনের জন্য আদালতে হাজির হয়ে ওকালত নামা ও জামিন নামায় স্বাক্ষর করে আইনজীবিদের সহযোগিতায় আদালতে কাগজপত্র দাখিল করার পর আদালত প্রাঙ্গণ থেকে পুলিশ তাকে জোরপূর্ক আটক করে নিয়ে যায় বলে সকালে স্থানীয় সাংবাদিকদের জানিয়েছিলেন তার আইনজীবি শফিকুল ইসলাম মোহন।

এ সময় আদালত প্রাঙ্গণ থেকে কোন আসামিকে গ্রেফতারের নিন্দা জানিয়ে বক্তব্য রাখেন জেলা আইনজীবি সমিতির সভাপতি এড. আবদুল মজিদ। তবে সারাদিনে পুলিশ আলিকে গ্রেফতারের বিষয়টি পুরোপুরি অস্বীকার করে।

গত ২৩ জুলাই শহরের দোয়ারপাড়ায় মাদক ব্যবসা, আধিপত্ত্ব বিস্তার এবং টেণ্ডার সংক্রান্ত বিষয় নিয়ে জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক কামরুল ভূইয়া এবং যুবলীগ কর্মী মেহেদি হাসান আজিবরের মধ্যে গোলাগুলির ঘটনা ঘটে। এ সময় বাচ্চু ভূইয়ার অন্ত:স্বত্ত্বা স্ত্রী নাজমা বেগম গুলিবিদ্ধ হয়। এছাড়া আহত হয় বাচ্চু ভূইয়ার চাচা আবদুল মোমিন ও মিরাজ নামে এক মাদক ব্যবসায়ী। পরে আবদুল মোমিন মারা গেলে তার ছেলে রুবেল ভূইয়া বাদি হয়ে জেলা ছাত্রলীগ সহ-সভাপতি সুমন সেনসহ ১৬ জনকে আসামি করে একটি মামলা দায়ের করে। মহম্মদ আলি এই মামলার ২নং আসামি।

উল্লেখ্য, পুলিশ মহম্মদ আলী সহ এ মামলার মোট ১৩ আসামিকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়েছে। এছাড়া মামলার ৩ নম্বর আসামি মেহেদি হাসান আজিবর গত ১৮ আগস্ট রাতে পুলিশের কথিত বন্দুকযুদ্ধে মারা যায়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Logo_image
সম্পাদক: জাহিদ রহমান
নির্বাহী সম্পাদক: আবু বাসার আখন্দ
প্রকাশক:: জাহিদুল আলম
যোগাযোগ:
পৌর সুপার মার্কেট ( দ্বিতীয় তলা), এমআর রোড, মাগুরা।
ফোন: ০১৯২১১৬১৬৮৭, ০১৭১৬২৩২৯৬২
ইমেইল: maguraprotidin@gmail.com