প্রথম পাতা » Featured » হুমায়ন কবিরের রুটি মেকার পৌছে গেছে বিশ্বের ২৫টি দেশে

হুমায়ন কবিরের রুটি মেকার পৌছে গেছে বিশ্বের ২৫টি দেশে

হুমায়ন কবিরের রুটি মেকার পৌছে গেছে বিশ্বের ২৫টি দেশে

আবু বাসার আখন্দ: স্থানীয় প্রযুক্তি আর কাঁচামালে তৈরি বুনাগাতির রুটি মেকার দিনে দিনে দেশের গণ্ডি ছাড়িয়ে বিশ্বের বিভিন্ন দেশেও ব্যাপক জনপ্রিয়তা পেয়েছে। ইতোমধ্যে পণ্যটি পরিবেশ অধিদপ্তর থেকে পরিবেশবান্ধব যন্ত্র হিসেবে স্বীকৃতি পাওয়ায় প্রসার বৃদ্ধির মাধ্যমে এটি বৈদেশিক অর্থ উপার্জনে যেমন সক্ষম হবে। তেমনি স্থানীয় বেকার যুবককের কর্মসংস্থানের উপায় হিসেবে পণ্যটি একটি জায়গা করে নিতে সক্ষম হবে বলে মনে করা হচ্ছে।
বিশ্বের প্রথম বিদ্যুতবিহীন পরিবেশবান্ধব রুটি তৈরি যন্ত্রটির আবিস্কারক মাগুরার তরুণ হুমায়ুন কবির। পেশায় একজন আইটি বিশেষজ্ঞ। স্ত্রীর রুটি বানানোর কষ্ট দেখে তিনি একটি সহজে ব্যবহার উপযোগী একটি যন্ত্র বানানোর চেষ্টা করেন। মাত্র তিন মাসের গবেষনায় যিনি সফল হন। ইতোমধ্যে তিনি নিজের বাড়ি শালিখা উপজেলার বুনাগাতি গ্রামে কন্যার নাম অনুসারে “লাইবা রুটি মেকার” নামে একটি কারখানা স্থাপন করে স্বল্প পরিসরে এর উত্পাদন শুরু করেছেন।Magura-02-Laiba-Ruti-Maker-
সরজমিনে বুনাগাতি গ্রামে লাইবা রুটি মেকার কারখানায় গিয়ে দেখা যায়, সেখানে ৩০ জন শ্রমিক কাজ করছে। যারা মাসে ২০০ থেকে ২৫০ টি মেশিন তৈরি করতে পারে। এই কারখানায় নিয়োজিত শ্রমিকদের ভিতর বেশির ভাগাই নারী শ্রমিক। যারা বাড়ির কাজ সেরে দিনের একটি সময় এখানে শ্রম দিয়ে অতিরিক্ত অর্থ উপার্জন করছেন। আর অত্যন্ত যত্ন নিয়ে কয়েকটি ধাপে কাঠ দিয়ে তৈরি করছেন একেকটি রুটি মেকার।
             লাইবা রুটি মেকারের উদ্ভাবক হুমায়ুন কবিরের সাথে কথা বলে জানা যায়, তার উদ্ভাবিত এই রুটি মেকারের চাহিদা বাজারে প্রচুর থাকলেও উত্পাদন স্বল্পতার কারণে সেই হারে বাজারে সরবরাহ করা সম্ভব হচ্ছে না। লাইবা রুটি মেকারের উপযোগিতার কারণে ইতোমধ্যে অনেকে তার কাছ কাছে সংগ্রহ করে দেশের বাইরেও নিয়ে গেছেন। অনলাইন প্রচারণার মাধ্যমে বর্তমানে বিশ্বের অন্তত ২৫টি দেশেও তার তৈরি রুটি মেকার পৌছে গেছে। দিনে দিনে সেসব অঞ্চলেও যার জনপ্রিয়তা সৃষ্টি হয়েছে ব্যাপকভাবে।
তিনি বলেন, বাজারে বর্তমানে ভারতের তৈরি বিভিন্ন কোম্পানীর বৈদ্যুতিক রুটি মেকার পাওয়া যায়। কিন্তু সেটি দিয়ে সেদ্ধ আটার রুটি তৈরি করা সম্ভব না হওয়ায় বাংলাদেশের বাজার ধরতে পারেনি। অন্যদিকে বিদ্যুত বা বিকল্প কোন শক্তির ব্যবহার ছাড়াই লাইবা রুটি মেকার দিয়ে কাঁচা বা সেদ্ধ চাল-গম-ডাল-আলুর আটা দিয়ে এক সাথে একাধিক রুটি, লুচি বা ফুচকা তৈরি করা যায়। যেখানে স্বাদের কোন পরিবর্তনই ঘটে না।
দেশীয় এ রুটি মেকারের সবচেয়ে আকর্ষণীয় ব্যাপার হচ্ছে, রুটি তৈরি সম্পর্কে কোনো ধারণা না থাকলেও যন্ত্রটি দিয়ে রুটি তৈরি করা সম্ভব। শুধু এর হাতলে চাপ প্রয়োগ করলেই আটার গোলা চমত্কার গোলাকৃতির রুটিতে পরিণত হয়ে ওঠে। যারা রুটি বানাতে গেলে এবড়ো-থেবড়ো করে ফেলেন, তাদের সম্মান বাঁচাতে খুবই সহায়ক এই যন্ত্রটি। এটি চালাতে বিদ্যুতের কোনো প্রয়োজন পড়ে না। অল্প পরিশ্রমে বেশী রুটি তৈরী করা যায়। তাই সময় ও শ্রম দুইই বাঁচে। অন্যদিকে এর মাধ্যমে তৈরি রুটি একটি নির্দিষ্ট মাপের হয়। বিধায় একই রকম ফোলা ও ভাজা হয়।
Magura-04-Laiba-Ruti-Maker- উদ্ভাবক হুমায়ুন কবির জানান, ‘লাইবা রুটি মেকার’ বিশ্বের একমাত্র যন্ত্র যাতে গমের সেদ্ধ আটার রুটি, গমের কাঁচা আটার রুটি, সেদ্ধ চালের গুঁড়াররুটি, তালের রুটি, কালিজিরা রুটি, মাসকলাইয়ের রুটি, মিষ্টিআলুর রুটি, দিল্লিকা রুটি, বেসন রুটি, ভেজিটেবল টোস্টরুটি, মাসরুম রুটি, ইন্ডিয়ান বাটার রুটি, খামিরি রুটি, মিছি রুটি, পালক পরোটা, পনির পরোটা, মাঠার পরোটা, মেথিপরোটা, গোবি পরোটা, ইন্ডিয়ান লাচ্চা পরোটা, এগ রোল পরোটা, কিমা পরোটা, ক্যাপসিকাম চিজ পরোটা, ক্যাবেজ পরোটা, পিসপরোটা, লুচি ও ফুচকা প্রভৃতি তৈরি করা যায়।
হুমায়ুন কবিরের ইচ্ছা ভবিষতে সরকারি সহায়তা পেলে কাঠের পরিবর্তে মেটাল মেশিন তৈরি করবেন। তাহলে তার কারখানায় তৈরি রুটি মেকার দেশের চাহিদা মিটিয়ে দেশের বাইরেও পাঠাতে পারবেন। আর তার এই স্বপ্ন বাস্তবায়নে চান সরকারি সহায়তা। সহজ শর্তে ঋণ সুবিধা পেলে তিনি তার কারখানাটির পরিধি আরো বাড়াতে সক্ষম হবেন। এতে করে এই প্রতিষ্ঠানটি স্থানীয় অনেক বেকার শ্রমিকের কর্ম সংস্থানের একটি ঠিকানা হতে পারে।
এ বিষয়ে মাগুরা বিসিক শিল্প সহায়ক কেন্দ্রের উপ-ব্যবস্থাপক আনোয়ারুল সিদ্দিক বলেন, হুমায়ুন কবিরের রুটি মেকারটি সম্পূর্ণ বিজ্ঞানসম্মত এবং অভিনব। পণ্যটি উত্পাদনে যথাযথ সহায়তা দেয়া সম্ভব হলে এটির বৃহত্ রূপ দেয়া সম্ভব। যা থেকে প্রচুর বৈদেশিক অর্থ দেশে আসতে পারে।

মন্তব্য (2)

  1. Laaibah says:

    Pls call us at 01799600010-17

  2. tithi says:

    very nice. eta ki online order korle pa o a jabe?

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Logo_image
সম্পাদক: জাহিদ রহমান
নির্বাহী সম্পাদক: আবু বাসার আখন্দ
প্রকাশক:: জাহিদুল আলম
যোগাযোগ:
পৌর সুপার মার্কেট ( দ্বিতীয় তলা), এমআর রোড, মাগুরা।
ফোন: ০১৯২১১৬১৬৮৭, ০১৭১৬২৩২৯৬২
ইমেইল: maguraprotidin@gmail.com