আজ, শনিবার | ১৬ই জানুয়ারি, ২০২১ ইং | রাত ৮:১০

বেঙ্গাবেরইল গ্রামে চিরকুটে ক্ষমা চেয়ে চুরির মালামাল ফেরত!

বেঙ্গাবেরইল গ্রামে চিরকুটে ক্ষমা চেয়ে চুরির মালামাল ফেরত!

কাসেমুর রহমান শ্রাবণ : মাগুরায় সদর উপজেলার বেঙ্গাবেরইল গ্রামের ঔষধ ব্যবসায়ী এরশাদ আলি মামুন নিজের ঘরে তালা মেরে গিয়েছেন শ্বশুর বাড়িতে। আর এই সুযোগে রাতের বেলা তার ঘরে ঢুকেছে চোর। পরদিন নিজ বাড়ি ফিরে মামুন দেখে ঘরের তালা ভাঙ্গা। এ অবস্থায় তিনি গ্রামের বিভিন্ন প্রান্তের লোকজন জড়ো করে স্থানীয় মাতবরদের কাছে অভিযোগ দেন, চোর তার ঘর থেকে ১০ ভরি স্বর্ণের অলঙ্কার এবং নগদ ৫০ হাজার টাকা চুরি করে নিয়ে গেছে।

মাতবরদের সামনে এ সময় মামুন হুসিয়ারি উচ্চারণ করে বলেন, “চোর গ্রামেরই লোক। চুরির মালামাল ফেরত না দিলে কঠিন পদক্ষেপ নেয়া হবে।”-এই ঘটনা ৮ ডিসেম্বর মঙ্গলবারের।

এদিকে মাতবরদের কাছে অভিযোগ দেওয়ার পরদিন বুধবার ভোরে ঘটে দারুন ঘটনা। চুরি হওয়া বাড়ির ঘরের বারান্দায় পাওয়া গেলো একটি ছোট্ট চিরকুট। সেই চিরকুটের পাশে ইমিটেশনের কিছু গহনাও আছে।

ভাঙাচোরা এবং ভুল বানানে লেখা সেই চিরকুট এমন,“মামুন কাকা, মাফ করে দেবেন। আর কোন দিন ভুল করবো না। কিছু নষ্টো হয়ে গেছে। যা আছে দিয়ে দিলাম। বাড়া বাড়ি করবেন না। চুরির ঘটনায় ৪ জন ছিলাম। আর টাকা ছিল মাত্র ৬০০-৭০০ টাকা।”

চিরকুট লিখে ডাকাতির ঘটনা হরহামেশা শোনা যায়। কিন্তু চুরির পর চিরকুট লিখে ক্ষমা চাওয়া এবং মালামাল ফেরত দেওয়ার ঘটনা খুবই বিরল। বিধায় বিষয়টি এলাকায় বেশ চাঞ্চল্যের সৃষ্টি করেছে। তবে গ্রামের অনেকের মনেই এখন প্রশ্ন জেগেছে মামুন কাকা’র ঘর থেকে কত টাকা আর কত ভরি স্বর্ণালঙ্কার চুরি হয়েছে সেই বিষয়ে!

যাইহোক, গ্রামের মানুষের মনে প্রশ্ন যেটিই থাক-চুরির ঘটনা ছিল সত্যি। পুলিশ সেটি তদন্ত করে হয়তো বের করবেন। এ বিষয়ে এরশাদ আলি মামুন থানায় লিখিত একটি অভিযোগ করেছেন বলে জানিয়েছেন চুরির ঘটনার তদন্তকারি কর্মকর্তা এসআই মামুন মোল্যা।

শেয়ার করুন...




©All rights reserved Magura Protidin. 2018-2020
IT & Technical Support : BS Technology